ঘূর্ণিঝড় আসার আগে কিভাবে প্রস্তুতি নিবেন

ঘূর্ণিঝড়ের আগে প্রস্তুতি নেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ এটি জীবন ও সম্পত্তি রক্ষায় সাহায্য করতে পারে। ঘূর্ণিঝড়ের আগে প্রস্তুতির জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করা যেতে পারে:

ব্যক্তিগত প্রস্তুতি:

1. আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ: স্থানীয় আবহাওয়া দপ্তরের ঘোষণা ও নির্দেশনা নিয়মিত অনুসরণ করুন।
2. জরুরি সরঞ্জাম প্রস্তুত: প্রথমিক চিকিৎসা বাক্স, পানি, শুকনা খাবার, টর্চলাইট, ব্যাটারি, প্রয়োজনীয় ওষুধ, গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র (জলপ্রতিরোধক ব্যাগে সংরক্ষিত) এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী প্রস্তুত রাখুন।
3. বাড়ি শক্তিশালীকরণ: জানালা ও দরজার উপর কাঠ বা শক্তিশালী প্লাস্টিক লাগিয়ে সুরক্ষিত করুন। বাড়ির চারপাশের ঝুঁকিপূর্ণ গাছপালা কেটে ফেলুন।
4. নিরাপদ আশ্রয়স্থল চিহ্নিতকরণ: কাছাকাছি সাইক্লোন শেল্টার বা নিরাপদ স্থানের অবস্থান চিহ্নিত করুন।
5. পরিবারের প্রস্তুতি: পরিবারের সকল সদস্যকে ঘূর্ণিঝড় সংক্রান্ত জরুরি পরিকল্পনা সম্পর্কে জানিয়ে দিন এবং একটি যোগাযোগের ব্যবস্থা রাখুন।

গৃহস্থালী প্রস্তুতি:

1. জরুরি যোগাযোগের ব্যবস্থা: নিকটস্থ জরুরি পরিষেবা, স্থানীয় প্রশাসন, আত্মীয়-স্বজন ও প্রতিবেশীদের ফোন নম্বর হাতের কাছে রাখুন।
2. গৃহস্থালী উপকরণ সংরক্ষণ: নাজুক এবং মূল্যবান জিনিসপত্র এমন স্থানে রাখুন যেখানে তারা জল ও বাতাস থেকে রক্ষা পাবে।
3. ইলেকট্রিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা: ঝড় আসার আগেই বাড়ির প্রধান ইলেকট্রিক সুইচ বন্ধ করে দিন।

কমিউনিটি প্রস্তুতি:

1. প্রতিবেশীদের সঙ্গে যোগাযোগ: প্রতিবেশীদের সাথে যোগাযোগ রাখুন এবং একে অপরের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য একটি পরিকল্পনা তৈরি করুন।
2. কমিউনিটি সেন্টার প্রস্তুতকরণ: স্থানীয় কমিউনিটি সেন্টারগুলোকে শেল্টার হিসেবে ব্যবহার করা যায় কিনা তা নিশ্চিত করুন এবং সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিন।

জরুরি কিট প্রস্তুতকরণ:

– খাবার ও পানি: প্রয়োজনীয় শুকনা খাবার ও পর্যাপ্ত পানির ব্যবস্থা করুন যা ৩-৫ দিন চলবে।
– জরুরি সরঞ্জাম: ফার্স্ট এইড কিট, ফ্ল্যাশলাইট, অতিরিক্ত ব্যাটারি, রেডিও।
– ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রী: মুখোশ, স্যানিটাইজার, হাতমোজা।
– গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র: আইডি কার্ড, ব্যাংক বই, জমির কাগজ ইত্যাদি।

ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী প্রস্তুতি:

1. ক্ষয়ক্ষতি নিরুপণ: ঝড় শেষে বাড়ি ও আশপাশের এলাকার ক্ষয়ক্ষতি নিরুপণ করুন।
2. নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ: ক্ষতিগ্রস্ত বৈদ্যুতিক লাইন, গ্যাস পাইপলাইন ইত্যাদি নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন।
3. স্থানীয় প্রশাসনের নির্দেশনা: স্থানীয় প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী পুনর্গঠন ও পুনর্বাসনের কাজ শুরু করুন।

See also  সফল হতে হলে যে ১০টি বিষয় মাথায় রাখতে হবে

এই প্রস্তুতিগুলো আপনাকে এবং আপনার পরিবারকে ঘূর্ণিঝড়ের সময় নিরাপদ রাখতে সাহায্য করবে। এছাড়াও আপনি নিজের মত করে আপনার প্রয়োজনীয় সকল কিছু নিরাপদ জায়গায় রেখে দিবেন । আশাকরি এগুলো মেনে চললে আপনি অনেক ক্ষতি থেকে বেঁচে যাবেন ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *